Home / ফেইসবুক কর্নার / কাদের সিদ্দিকীকে লেখা মুজিব সৈনিক বিশ্বজিত নন্দীর পত্র

কাদের সিদ্দিকীকে লেখা মুজিব সৈনিক বিশ্বজিত নন্দীর পত্র

46

ময়মনসিংহের মুক্তাগাছার কৃতিসন্তান বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদে ফাঁসির মঞ্চ থেকে বেচে যাওয়া প্রতিরোধযোদ্ধা মুজিব সৈনিক ‘বিশ্বজিত নন্দীর’ কাদের সিদ্দিকীকে লেখা পত্র-

শ্রদ্ধেয় কাদের ভাই,
সালাম নিবেন।
জানি, আমাকে এখন আপনি চিনতে পারবেন না। আমি মুক্তাগাছার গোবিন্দপুর গ্রামের বিশ্বজিৎ নন্দী।

পিতা হত্যার প্রতিশোধ নিব বলে, আপনার সাথে অস্ত্র হাতে প্রতিরোধ যুদ্ধে নেমেছিলাম। আপনি বলতেন, “পিতা হত্যার প্রতিশোধ না নিয়ে ঘরে ফিরবেন না।” অথচ আপনি আজ কেবল ঘরেই ফিরেননি, আপনার ঘরে আজ ঐ খুনিদের আনাগোনা। একত্রে বসে পরিকল্পনা করেন, কিভাবে মুজিব কন্যার পতন ঘটাবেন।

১৯৭৬ সালের ১৮ই আগষ্ট দিনটির কথা কী মনে আছে। অপারেশনে পাঠিয়েছিলেন মুক্তাগাছায়! সেনাবাহিনী আমাদের চারদিক থেকে ঘিরে ফেলেছিল।

আমাদের আত্মসর্মপণের নির্দেশ দেয়। কিন্তু আত্মসমর্পণের মাধ্যমে আরেকটি কলঙ্কের ইতিহাস হোক, তা চাইনি বলে, টানা ৮ ঘণ্টা যুদ্ধ চালাতে গিয়ে সহযোদ্ধা পাঁচজনের মৃত্যু হয়। হাতে-পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় আমাকে গ্রেপ্তার করা হয়। অথচ আজ আপনিই ওদের কাছে আত্মসমর্পন করে বসে আছেন।

যৌবনের ১৩ টা বছর আমি কাটিয়েছি কারাগারে। ৭ বছর ছিলাম কনডেম সেলে। যে জিয়ার হয়ে আজ আপনি মাঠঘাট চষে বেড়াচ্ছেন, সে জিয়ার সামরিক আদালতে ১৯৭৭ সালের ১৮ মে আমার ফাঁসির রায় হয়।

আমি বিশ্বজিৎ ওদের চোখে অপরাধী হলেও, আপনি এখন ওদের কাছে মহামানব। ভালো থাকবেন হে মহামানব। ক্ষমতায় গিয়ে, যদি পারেন, আমার জীবন থেকে হারিয়ে যাওয়া সেই ১৩ টা বছর ফিরিয়ে দিবেন। তা না হলে, আপনি আমার কাছে বাকি জীবনটা বিশ্বাসঘাতক হয়েই থাকবেন।

ইতি
বিশ্বজিৎ নন্দী
টাঙ্গাইল।
১৯ নভেম্বর ২০১৮ইং

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

nilima sarkar

স্বার্থপরতা ত্যাগ করে সম্পর্কের স্বাদ আস্বাদনই সফল জীবনের দৃষ্টান্ত : নীলিমা সরকার

আমি একদিন শুধু কারো সন্তান ছিলাম, তার পর কারো স্ত্রী হলাম, তার পর হলাম মা! ...