Home / ফেইসবুক কর্নার / চা খেয়ে বিল দেওয়ার সময় দোকানী বললেন, টাকা লাগবে না

চা খেয়ে বিল দেওয়ার সময় দোকানী বললেন, টাকা লাগবে না

403051

চা খেয়ে বিল দেওয়ার সময় দোকানী বললেন, টাকা লাগবে না। বললাম, কেন ? বললেন সবসময় তো নিই, আজ থাক না? আরো বললেন, উপুর্যপরী পরিশ্রমের কারনে ঘুমের ঘোরে সেদিন আপনাদের সেভাবে আপ্যায়ন করতে পারিনি। বুঝলাম মনে রেখেছেন অশীতিপর এই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী তাঁর মৌসুমী খরিদ্দারদের। এই সামান্য খরিদ্দারকে মনে রাখার জন্য মনে মনে ধন্যবাদ দিয়ে একরকম জোর করেই বিলটা দিলাম।

খুবই আশ্চর্য হলাম অনাত্বীয় এই মানুষটার কিছু কথা শুনে। আরো বেশি আশ্চর্য হলাম চা দোকানী অধীর কাকার গায়ের জামা, পরনের লুঙ্গি আর গামছাটা দেখে।

গতদিন একই পোষাকে দেখেছিলাম ওঁনাকে। কাকতালীয় কিনা জানিনা। তবে পরনের পোষাক আরো আছে কিনা তা অনুমান করতে পারলাম না। বুঝলাম ব্যবসার যৎসামান্য মুনাফার টাকায় খুব চাকচিক্য থাকা আর বিলাসিতা দেখানোটা ওঁনার অভিধানে নেই।

পোষাক যেমনই হোক অসীম মনের অধিকারী অধীর কাকার বড় হৃদয় আমাকে সত্যিই বিমোহিত করেছে। সামান্য সময়ের পরিচয়ের এই মহানুভব মানুষটার সান্নিধ্য খুব উপভোগ করলাম।

আমার পরিবারের বিশেষ পছন্দের কারনে ভাটিয়াপাড়া মোড়ের অধীর কাকার চা না খেলে যাত্রা অসম্পূর্ণ থেকে যায়। তাই যাত্রা বিরতিতে চা খেতে খেতে কিছুক্ষন গল্প।

অধীর কাকা বললেন ব্রিটিশ আমলের মানুষ উনি। এখন বোঝেন বয়স কত ? আজ পর্যন্ত নাকি বড় কোন অসুখে পড়েননি। স্ত্রী বর্তমানে প্রতিবেশি রাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাসকারী ছেলের কাছে থাকেন। আর এক ছেলেকে নিয়ে এখানে ওঁনার বসবাস।

বলে চললেন, আমি যদি চাকরী করতাম তবে আপনারা যাত্রা পথে চা খেতেন কিভাবে ? সবাই চাকরী করলে চলতি পথে চা খাওয়াবে কে ?
আসলেই ভাবার বিষয় ! পকেটে টাকা থাকলেও অনেক সময় পণ্যের অভাবে চাহিদামত কিছু কেনা যায়না। মানুষ টাকা দিয়ে অধীর কাকার চা কিনে খেলেও এই প্রত্যন্ত অন্চলে প্রকৃত অর্থে তা চা পিপাসুদের কঠিন তৃষ্ণা মিটাচ্ছে। আমার মতে নাম মাত্র মুনাফায় অধীর কাকা প্রকৃতপক্ষে যাত্রা পথের মানুষের সেবাই করে যাচ্ছেন।

ঢাকায় যাওয়ার দাওয়াত করলাম। বললেন নিজে সশরীরে ঢাকায় না গেলেও প্রতিবছরই ওঁনার ঢাকায় যাওয়া হয়। বললাম সেটা কিভাবে ?
বললেন, প্রতি বছর ইজতেমার সময় ভাল মানুষ বেছে তাদের কাছে কিছু টাকা দেন ইজতেমায় খরচ করার জন্য। ব্যাখ্যা দিলেন ঠিক এভাবে, ওঁনার দেওয়া টাকা ঢাকাতে যাওয়া মানেই ওঁনার ঢাকা যাওয়া। যুক্তি শুনে ভাল লাগলো।

আরো ভাল লাগলো মানুষটার আতিথেয়তায়। স্বল্প সময়ের পরিচয়ে মানুষটার মনের কথাগুলো খুব ভালো লাগলো। কথাগুলো শুনে অনাত্বীয় এই মানুষটার জন্য এক ধরনের মায়া অনুভব করলাম। নাম মাত্র মুনাফায় রাতদিন সেবা প্রদানকারী এই মানুষটা বেঁচে থাক আজীবন। অধীর কাকার বিখ্যাত চায়ের জন্য অধীর অপেক্ষাতেই থাকতে চাই সারা জীবন।

কাজী ওয়াজেদ,ওসি যাত্রাবাড়ী থানা’র ফেইসবুক থেকে সংগৃহীত।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

dak

তোমার খোলা হাওয়া লাগিয়ে পালে (চার) ………. নীরেশ চন্দ্র দাস

প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী হৈমন্তী শুক্লার একটিপ্রখ্যাত জনপ্রিয় গান — “ঠিকানা না রেখে ভালই করেছ বন্ধু, না ...