Home / লেখক / ইলেকশন না সিলেকশন?

ইলেকশন না সিলেকশন?

বাবুল হোসেন খান: আগামি ১১ ডিসেম্বর ২০১৯ইং রোজ বুধবার হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার জন্য সকল প্রস্তুতি সম্পূর্ণ। ইতোমধ্যে সম্মেলনকে ঘিরে ৮ পদে ২৯ জন প্রার্থী ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। তবে ইলেকশন না সিলেকশন এটা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে রয়েছেন প্রার্থীরা। জেলা-উপজেলার নেতাকর্মীদের চাওয়া, তৃণমূলের প্রত্যাশা পূরণ করতে পূর্বেকার নিয়মে ইলেকশনের মাধ্যমে কাউন্সিল হউক।
নেতাকর্মীদের দাবী, কাউন্সিলে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা ইলেকশনের মাধ্যমে নির্বাচিত হলে তাতে তৃণমূলের প্রত্যাশার প্রকাশ ঘটে এবং সঠিক নেতৃত্বের বিকাশ ঘঠে। আর যদি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সিলেকশনের মাধ্যমে কমিটি করে দেয় তাতে তৃণমূলের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটে না। ইলেকশন হলে তাতে তৃণমূলের প্রত্যাশার প্রতিফলন ঘটে।

অন্যদিকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ যদি মনে করে হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান নেতৃত্বকে পুনরায় সিলেকশন করে দিবে, তাতেও তৃণমূলের নেতৃবৃন্দের আস্থা ও সম্মতি থাকবে । মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি হবিগঞ্জ জেলার সর্বস্তরের নেতাকর্মীর অগাধ বিশ্বাস ও শ্রদ্ধা রয়েছে।

এদিকে জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে ঘিরে জেলাজুড়েই চলছে জল্পনা-কল্পনা। আলোচনা হচ্ছে কে হবেন জেলা আওয়ামী লীগের কাণ্ডারি? প্রধানত প্রধান দুই পদ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নিয়েই জল্পনা-কল্পনা বেশি। ইতোমধ্যে এই পদে বেশ কয়েকজনের নাম রয়েছে তালিকায়। তারা প্রত্যকেই জেলা আওয়ামী লীগকে সামনে এগিয়ে নিতে ও দলের জন্য কাজ করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করছেন। স্ব-স্ব অবস্থান থেকে তুলে ধরছেন দলের জন্য নিজেদের সংগ্রাম ও প্রত্যাশার প্রতিশ্রুতি।
সম্মেলন ও কাউন্সিল সফল ও স্বার্থক হউক, এটাই কামনা করি। জয়-বাংলা, জয়-বঙ্গবন্ধু।

লেখক:বাবুল হোসেন খান,
সভাপতি, শাহজাহানপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, মাধবপুর, হবিগঞ্জ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

x

Check Also

বাংলাদেশ এবং একজন ইন্দিরা গান্ধী

অধ্যাপক ডাঃ মামুন আল মাহতাবঃ বাঙালীর জাতীয় জীবনে সবচেয়ে গৌরবের মাসটি নিঃসন্দেহে ডিসেম্বর। কারণ ক্যালেন্ডারের ...